নিবন্ধন পেতে আবেদন ৭৬ দলের

নিবন্ধন পেতে আবেদন ৭৬ দলের

নতুন দল নিবন্ধনে দুই মাসের আবেদনের সময়সীমার শেষ দিন ছিল রোববার।
সন্ধ্যায় ইসি সচিব বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “নির্ধারিত সময়ে ৭৬টি দলের আবেদন পাওয়া গেছে।”
এরমধ্যে ১৫টি দল সময় বাড়ানোর আবেদন জানিয়েছে। কিন্তু সময় না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত ইসির রয়েছে বলে জানান হেলালুদ্দীন।
সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন বাধ্যতামূলক। ২০০৮ সাল থেকে তা চালুর পর বর্তমানে ৪০টি দল নিবন্ধিত রয়েছে। দলীয় প্রার্থীর বাইরে অন্যদের স্বতন্ত্র প্রার্থী হতে হয়।
গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও) অনুযায়ী, কমিশনের তিনটি শর্তের মধ্যে একটি পূরণ হলে একটি দল নিবন্ধনের যোগ্য বিবেচিত হয়। নতুন কোনো দলকে নিবন্ধন পেতে হলে শেষ শর্তটিই পূরণ করতে হয়

শর্তগুলো হলো- ১. দেশ স্বাধীন হওয়ার পর যে কোনো জাতীয় নির্বাচনের আগ্রহী দলটি যদি অন্তত একজন সংসদ সদস্য থাকেন; ২. যে কোনো একটি নির্বাচনে দলের প্রার্থী অংশ নেওয়া আসনগুলোয় মোট প্রদত্ত ভোটের ৫ শতাংশ পায়। ৩. দলটির যদি একটি সক্রিয় কেন্দ্রীয় কার্যালয়, দেশের কমপক্ষে এক তৃতীয়াংশ [২১টি] প্রশাসনিক জেলায় কার্যকর কমিটি এবং অন্তত ১০০টি উপজেলা/মেট্রোপলিটন থানায় কমপক্ষে ২০০ ভোটারের সমর্থন সম্বলিত দলিল থাকে।

ইসির সচিব বলেন, “নিবন্ধন আবেদনগুলো যাচাইয়ের জন্য একটি কমিটি গঠন করা হবে। এ কমিটি নতুন দল শর্তপূরণ করেছে তা কঠোরভাবে তদারকি করে প্রতিবেদন করবে। সেই সঙ্গে মাঠ পর্যায়ে ও কেন্দ্রের অফিসের তথ্য যাচাইয়ের জন্য প্রয়োজনীয় অনুসন্ধান চালাবে।”

আগামী মার্চের মধ্যে নতুনদের নিবন্ধন দেওয়ার প্রক্রিয়া চূড়ান্ত হবে বলে জানান হেলালুদ্দীন।

তিনি জানান, পাশাপাশি নিবন্ধিত ৪০টি দলের শর্ত প্রতিপালন করা সংক্রান্ত তদারিক কার্যক্রমও পরিচালিত হবে। কেউ নিবন্ধিত হয়েও এর ব্যত্যয় থাকলে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে কমিশনের কাছে উপস্থাপন করা হবে।

দলের বাহারি নাম

দল নিবন্ধন পেতে মাহমুদুর মান্নার নাগরিক ঐক্য, নাকফুল বাংলাদেশ, জোনায়েদ সাকির গণসংহতি আন্দোলন, জাসদের একাংশ বাংলাদেশ জাতীয় সমাজতান্ত্রিদল-বাংলাদেশ জাসদ, ববি হাজ্জাজের এনডিএম আবেদন করেছে।

জাসদ একাংশের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক প্রধান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, বাংলাদেশ জাসদ নামেই নিবন্ধন আবেদন করা হয়েছে।

হাতি অথবা আনারস প্রতীক চেয়েই আবেদন করেছে দলটি।

এছাড়া নানা বাহারি নামেও রয়েছে রাজনৈতিক দল।

৭৬ দল হচ্ছে- জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন (এনডিএম), বাংলাদেশ আলোকিত পার্টি, বাংলাদেশ সমাধান ঐক্য পার্টি, বাংলাদেশ কর্মসংস্থান আন্দোলন, বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি, বাংলাদেশ মঙ্গল পার্টি, বাংলাদেশ পিপলস ডেমোক্রেটিক পার্টি, বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক দল, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ও নেজামে ইসলাম পার্টি, বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক আওয়ামী লীগ (বাকশাল), বাংলাদেশ জনতা পার্টি, বাংলাদেশ ইসলামিক গাজী, বাংলাদেশ জালালী পার্টি, বাংলাদেশ রিপাবলিকান পার্টি, এহসানিয়া বিপ্লব বাংলাদেশ, বাংলাদেশ জনতা পার্টি, বাংলাদেশ সমাজ উন্নয়ন পার্টি, বাংলাদেশ জাতীয় লীগ, বাংলাদেশ নিউ সংসদ লীগ, বাংলাদেশ পরিবহন লেবার পার্টি, বাংলাদেশ জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-বাংলাদেশ জাসদ, নাকফুল বাংলাদেশ, তৃণমূল ন্যাশনাল পার্টি, বাংলাদেশ সত্যব্রত আন্দোলন, ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি, বাংলাদেশ মানবাধিকার আন্দোলন, সোনার বাংলা উন্নয়ন লীগ, ইনসানিয়াত বিপ্লব বাংলাদেশ, বাংলাদেশ সমাজ উন্নয়ন পার্টি, ন্যাশনাল কংগ্রেস বাংলাদেশ, বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক পার্টি, গণতান্ত্রিক ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি, বাংলাদেশ ঘুষ নির্মূল পার্টি, বাংলাদেশ গণশক্তি দল, বাংলাদেশ সততা দল, বাংলাদেশ তৃণমূল পার্টি, বেঙ্গল জাতীয় কংগ্রেস, বাংলাদেশ হিন্দু লীগ, বাংলাদেশ জনতা ফ্রন্ট, বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক পার্টি, বাংলাদেশ মাইনরিটি জনতা পার্টি, সুশীল সামাজিক আন্দোলন, লিবারেল পার্টি, বাংলাদেশ রামকৃষ্ণ পার্টি, বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামি পার্টি, মুক্ত রাজনৈতিক আন্দোলন, বাংলাদেশ জাতীয় দল, জাতীয় পরিবার কল্যাণ পার্টি, নতুন ধারা বাংলাদেশ, বাংলাদেশ জাতীয় লীগ, সাধারণ জনতা পার্টি, বাংলাদেশ ফরায়েজী আন্দোলন, গণসংহতি আন্দোলন, বাংলাদেশ তৃণমূল কংগ্রেস, ঐক্য ন্যাপ, বাংলাদেশ লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি, মুক্তিযোদ্ধা কমিউনিজম ডেমোক্রেটিক পার্টি, বাংলাদেশ গণ আজাদী লীগ, বাংলাদেশ ইসলামিক পার্টি, বাংলাদেশ শান্তির দল, বাংলাদেশ লেবার পার্টি, কৃষক শ্রমিক পার্টি, জনস্বার্থে বাংলাদেশ, জনতার কথা বলে, বাংলাদেশ তৃণমূল লীগ, বাংলাদেশ জনতা পার্টি, বাংলাদেশ লেবার পার্টি, নাগরিক ঐক্য, মৌলিক বাংলা, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি, বাংলাদেশ ডেমোক্রেটিক মুভমেন্ট, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি বাংলাদেশ, বাংলাদেশ কংগ্রেস এবং বাংলাদেশ আওয়ামী পার্টি (ভাসানী)।

এই খবর গুলিও পড়তে পারেন