গাজীপুর সদরে বনের মিথ্যা মামলায় সাংবাদিক কারাগার

গরমিল প্রতিবেদকঃ

বন বিভাগের সাজানো মামলায় যুগান্তরের গাজীপুরের জয়দেবপুর থানা প্রতিনিধি এমএ কাসেমকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। বনপ্রহরী (ভারপ্রপ্ত বিট কর্মকর্তা) হোসেন আহমেদের করা মামলায় জয়দেবপুর থানা পুলিশ মঙ্গলবার কাসেমকে গ্রেফতার করে।

বুধবার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বন আদালত, গাজীপুরে তার জামিনের আবেদন করা হলে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুন নাহার তার জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

বন বিভাগের প্রহরীর করা মিথ্যা মামলায় এমএ কাসেমকে গ্রেফতার করে হয়রানি করার প্রতিবাদে বুধবার সাংবাদিকরা মাববন্ধন করেছেন গাজীপুর সদর উপজেলা প্রেস ক্লাবে। সদর উপজেলার হোতাপাড়া বাসস্ট্যান্ডসংলগ্ন প্রেস ক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত ওই মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন- মাই টিভির সদর উপজেলা প্রতিনিধি মাহবুবুল আলম, এশিয়ান টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি আরিফ খান আবির, বিজয় টিভির জেলা প্রতিনিধি আনোয়ার হোসেন, নতুন সময় টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি ওবায়দুল ইসলাম, দৈনিক বর্তমান কথা পত্রিকার গাজীপুর সদর প্রতিনিধি আবু জাফর, দৈনিক মুক্ত বলাকার স্টাফ রিপোর্টার মিলন শেখ ও দৈনিক যোগফলের সদর উপজেলা প্রতিনিধি রোকুনুজ্জামান খানসহ স্থানীয় সাংবাদিকরা।

এ সময় সাংবাদিকরা বলেন, বনপ্রহরী ও স্থানীয় কিছু কুচক্রী মহলের ব্যক্তি স্বার্থে আঘাত লাগায় যুগান্তরের স্থানীয় প্রতিনিধি এমএ কাসেমকে হয়রানিমূলক মামলা দিয়ে গ্রেফতার করা হয়েছে। ইতোমধ্যে এই বন বিভাগের নামে কুচক্রী মহলের নেতৃত্বে বন বিভাগের কিছু অসাধু কর্মচারী মিলে লাখ লাখ টাকার গাছ কেটে আত্মসাৎ করার সংবাদ কাসেমসহ অন্য সাংবাদিকরা প্রকাশ করেন। এই চক্রটি এর আগেও তিন সাংবাদিককে মিথ্যা মামলায় জেল খাটিয়েছে।

সাংবাদিকরা মানববন্ধনে এমএ কাসেমের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করেন।

এই খবর গুলিও পড়তে পারেন